রবিবার, ১৫ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৯শে মার্চ, ২০২০ ইং

দুই সপ্তাহ সুনামগঞ্জসহ দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের সিদ্ধান্ত

খবরটি শেয়ার করুন

ডেস্ক রিপোর্ট::

দেশে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের মধ্যে সতর্কতামূলক পদক্ষেপ হিসেবে আপাতত দুই সপ্তাহ সুনামগঞ্জসহ দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের সময়ে শিক্ষার্থীদের বাড়িতেই থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সোমবার (১৬ মার্চ) মন্ত্রিসভার বৈঠকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। তেজগাঁওয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

✅ আপনাদের ভালোবাসায়

বাংলাদেশে গত ৮ মার্চ প্রথম করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত তিন জন এবং ১৪ মার্চ আরও দু’জন রোগী পাওয়া যায়। প্রথম তিন জনের মধ্যে দু’জন বিদেশ থেকে আসায় তৃতীয় আরেক জনের শরীরে করোনা ছড়ায়। আর পরের দুজনের একজন ইতালি ও অপরজন জার্মানি থেকে দেশে ফিরেছিলেন। সোমবার (১৬ মার্চ) নতুন করে আরও তিনজনের শরীরে করোনার সংক্রমণ দেখা দেওয়ার কথা জানায় আইইডিসিআর, যাদের মধ্যে দু’জনই শিশু এবং একজন নারী।

দেশে আট জনের শরীরে সংক্রমণের এই পরিস্থিতিতে মন্ত্রিসভার এই সিদ্ধান্তের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের ঘোষণা দেওয়া শুরু করেছে। সচিবালয়ে ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ৩১ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ‘সেই সঙ্গে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে যে, অভিভাবকেরা নিশ্চিত করবে যে তাদের ছেলেমেয়েরা একা বাইরে ঘুরে না বেড়ায়। তাদেরকে ছুটি দেওয়াই হচ্ছে সেফটির জন্য। বাইরে ঘোরাফেরা করলে তদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে। একা একা যেন বাইরে না যায়, অভিভাবকদের সঙ্গে যেতে পারে।’

এ বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি দুপুরে সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘যদিও সংক্রমণের ঘটনা অত্যন্ত কম, তবুও সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশের সব পর্যায়ে, সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ থাকবে, মন্ত্রিসভায় এই সিদ্ধান্ত হয়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি সব কোচিং সেন্টারও এই সময় বন্ধ রাখা হবে বলে জানান তিনি। দীপু মনি বলেন, অভিভাবকরা উদ্বেগ জানিয়েছিলেন, শিক্ষার্থী এবং শিক্ষকদের কেউ কেউ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের দাবি জানিয়েছেন। শিক্ষার্থীদের বাড়িতে থাকার নির্দেশনার বিষয়টি নিয়ে তিনি বলেন, ‘অভিভাবকসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে অনুরোধ জানাবো, (স্কুল ছুটির সময়) শিক্ষার্থীদের অবশ্যই বাড়িতে থাকা নিশ্চিত করতে হবে।’

সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটি দীর্ঘায়িত হতে পারে আভাস দিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আগামী মাসের মাঝামাঝি থেকে গ্রীষ্মের ছুটি ও রোজার ছুটি শুরু হবে। আমরা দেখবো অবস্থা কী করম হয়। যদি প্রয়োজন হয় সেই ছুটির সঙ্গে আমরা (এই ছুটিটা) অ্যাডজাস্ট করার চেষ্টা করবো।’

আগামী ১ এপ্রিল থেকে এইচএসসি পরীক্ষার বিষয়ে কী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে- প্রশ্নে দীপু মনি বলেন, ‘সেই তারিখের আরও কাছাকাছি গেলে তখন সিদ্ধান্ত দিতে পারবো। সতর্কতামূলক, প্রতিরোধমূলক যা কিছু আমাদের প্রয়োজন হবে আমরা সেই সিদ্ধান্ত নেবো, কোনো সিদ্ধান্ত নিয়ে আমরা পিছপা হবো না। কিন্তু আগ বাড়িয়ে যেটির প্রয়োজন নেই সে রকম কোনো সিদ্ধান্তও নিতে চাই না। বৈশ্বিক এবং দেশের পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে আমরা সিদ্ধান্ত নেবো।’

সুনামগঞ্জ২৪.কম/ বাংলানিউজ/ এমএআই

খবরটি শেয়ার করুন

✅ বিজ্ঞাপন

✅ বিজ্ঞাপন

✅ বিজ্ঞাপন