বৃহস্পতিবার, ২১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা জুন, ২০২০ ইং

অসহায়দের পাশে ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড়-সংগঠকরা

খবরটি শেয়ার করুন:

বিশেষ প্রতিবেদক:: করোনা ভাইরাসের কারণে সবাই যখন গৃহবন্দী, তখন শ্রমজীবী আর নিম্নবিত্তদের পরিবারে চলছে নীরব কান্না। সেই বোবা কান্নার আওয়াজ আঘাত করেছে ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড়দের। তাই এই দুঃসময়ে খাদ্যসহায়তা নিয়ে তারা বেরিয়ে পড়েছেন অসহায়দের ঘরে ঘরে। ‘মানবসেবায় ব্যাডনিমন্টন পরিবার’ -এই ব্যানারে তারা এখন দেশের বিভিন্ন স্থানে দুর্দশাগ্রস্ত মানুষের কাছে পৌঁছে দিচ্ছেন খাদ্যসামগ্রী।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ আতঙ্কে কর্মহীন হয়ে পড়েছেন সুনামগঞ্জের সোনাপুর বেদেপল্লীর শ’খানেক বেদে পরিবারের মাঝে ১৫ দিনের প্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী ও প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা পৌঁছে দেন।

✅ আপনাদের ভালোবাসায়

করোনা ভাইরাস প্রতিহত করতে সরকার যখন সবাইকে ঘরে থাকার নির্দেশ দেয়, তখন জাতীয় দলের শাটলার মো. আম্মার এবং তার দুই সতীর্থ ইদ্রিস ও জাবেদকে নিয়ে দেশ-বিদেশের ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড় ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের কাছে সহযোগিতার আহ্বান জানান। তাদের এই আহ্বানে সাড়া দিয়ে দেশের সাবেক ও বর্তমান জাতীয় ও আঞ্চলিক ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড়, ব্যাডমিন্টনপ্রেমী, ক্রীড়া সংগঠক, ব্যাডমিন্টন কোচ, আম্পায়ার ও ব্যাডমিন্টন ফেডারেশনের কর্মকর্তারা এগিয়ে আসেন।

সবার সহযোগিতায় বাড়তে থাকে তহবিল। আর সেই তহবিল নিয়ে তারা মাঠে নামেন অসহায়দের সহযোগিতায়। ‘মানবসেবায় ব্যাডমিন্টন পরিবার’প্রসঙ্গে সংগঠনের উদ্যোক্তা ও জাতীয় দলের শাটলার মো. আম্মার বলেন, এই দু:সময়ে ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড় ও ক্রীড়ানুরাগীরা যেভাবে এগিয়ে এসেছেন তা অকল্পনীয়। মানবিক আবেদনে এতো সাড়া মিলবে তা আমরা আগে চিন্তাও করিনি। সবার সহযোগিতা পাওয়ায় অসহায়দের ঘরে ঘরে খাদ্যসহায়তা পাঠানো সম্ভব হচ্ছে। নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে আমরা কার্যক্রম পরিচালনা করছি। আগামী কয়েকদিনের মধ্যে আমরা দেশের ৬টি জেলায় নিন্মবিত্ত পরিবারের মাঝে নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী বিতরন করবো৷ সবাই যদি নিজ নিজ অবস্থান থেকে এগিয়ে আসে তাহলে করোনা ভাইরাসের কারণে কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষ খাদ্যাভাবে পড়বে না।

সুনামগঞ্জ২৪.কম/এসএম

খবরটি শেয়ার করুন:

✅ বিজ্ঞাপন

✅ বিজ্ঞাপন

✅ বিজ্ঞাপন