শুক্রবার, ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৩ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং

শত্রুমর্দন বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণ কাজে নিম্নমানের রড ব্যবহার!

খবরটি শেয়ার করুন

ছায়াদ হোসেন সবুজ :
সুনামগঞ্জ জেলার দক্ষিণ সুনামগঞ্জের পশ্চিম পাগলা ইউনিয়নের শত্রুমর্দন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণ কাজে নন গ্রেড রড ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে। ভবন নির্মাণ কাজে নিম্নমানের রড ব্যবহার করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি ও এলাকাবাসী। তাদের অভিযোগ কারো কথা তোয়াক্কা না করেই ভবন নির্মাণকারি সমীর চন্দ্র দাস ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটি রাতের আধারেই নিম্নমানের ননগ্রেড রড দিয়ে করছে ভবন নির্মাণের কাজ৷ ভবন নির্মাণে কেএসআরএম রড লাগানোর কথা থাকলেও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নিজের খেয়াল খুশিমত কেএসআই ৪০০ রড দিয়ে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। যার ফলে ভবন নির্মাণে মারাত্মক অনিয়ম হচ্ছে। উপজেলা প্রকৌশলী ও বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি বারবার নিষেদ করার পরেও পুরাতন রড দিয়েই চলছে ভবন নির্মাণের কাজ ।
জানা যায়, চলতি বছরের ৯ ফ্রেবুয়ারী ২০১৯ ইং তারিখে এই আসনের সাংসদ পরিকল্পনামন্ত্রী আলহাজ্ব এম এ মান্নানের প্রচেষ্টায় বিদ্যালয়টির ভবন নির্মাণের জন্য ৬৩ লক্ষ ৯২ হাজার ৩৪৮ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়।

✅ বিজ্ঞাপন
cafeneio

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, ভবন নির্মাণে কিছু জায়গায় ননগ্রেড রড ব্যবহার করা হয়েছে। পুরাতন নিম্নমানের রড পরে রয়েছে যত্রতত্র। ভবন নির্মাণের মেয়াদ একবার শেষ হলেও এখনো কাজ চলছে কচ্ছপ গতিতে। বন্ধ রয়েছে নির্মাণ কাজ। যার ফলে লেখাপড়ার ব্যাঘাত ঘটছে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের। এসময় এলাকাবাসীর অনেকেই অভিযোগ করেছেন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে। বহুল প্রত্যাশিত এই ভবনে অনিয়ম সহ্য করবেন না বলেও জানান অনেকে।

শত্রুমর্দন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ধনঞ্জয় চন্দ্র বলেন, বারবার বলার পরেও নিম্নমানের রড ব্যবহার করছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। আমরা এব্যাপারে ইউএনও মহোদয়ের কাছে অভিযোগ করেছি।

✅ বিজ্ঞাপন
coffeclub

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সাবেক সভাপতি সুরঞ্জিত চৌধুরী বলেন, ভবন নির্মাণ কাজে অনিয়ম হচ্ছে। নির্মাণ কাজে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করা হচ্ছে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কারো কথা মানছে না।

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি রঞ্জিত পাল বলেন, পরিকল্পনামন্ত্রী মহোদয় আমাদের ছেলে-মেয়েদের লেখাপড়ার কথা চিন্তা করে আধুনিক ভবন দিলেও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নিজের খেয়াল খুশিমত কাজ করে যাচ্ছে। ননগ্রেড রড দিয়েই কাজ করছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান।

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সত্বাধীকারি সমীর চন্দ্র দাস বলেন, আমি ঢাকা এ বিষয়ে কিছু জানি না।

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা এলজিইডির উপ-সহকারী রাজু আহমেদ বলেন, আমরা পুরাতন রডগুলো না লাগানোর জন্য বলেছিলাম। যদি লাগিয়ে থাকে তাহলে তা খুলে ফেলা হবে।

এ ব্যাপারে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার জেবুন নাহার শাম্মী বলেন, স্কুল কমিটির অভিযোগ পেয়েছি। আগামীকাল ভবনটির নির্মাণ কাজ পরিদর্শনে যাবো।

খবরটি শেয়ার করুন

✅ বিজ্ঞাপন

✅ বিজ্ঞাপন

✅ বিজ্ঞাপন